fbpx

সমকালীন বাংলাদেশের সমাজ ও সংস্কৃতির উপর নগরায়নের প্রভাব আলোচনা কর।

প্রশ্নঃ সমকালীন বাংলাদেশের সমাজ ও সংস্কৃতির উপর নগরায়নের প্রভাব আলোচনা কর।

ভূমিকা: বাংলাদেশের সমাজের ওপর নগরায়ণেরর যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। নগরায়ণের প্রভাব সাধারণত দুই দিক দিয়ে বিচার করা হয়। একদিকে যেমন সামাজিক পরিবর্তন সাধিত হচ্ছে। অন্যদিকে আবার কিছুটা সামাজিক সমস্যারও সৃষ্টি হচ্ছে। আমাদের দেশে যে হারে নগরায়ণ ও শিল্পায়ন হচ্ছে, সে হারে এই দেশের মানুষ সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে না। এরপরে নগরায়ণ এবং শিল্পায়ন আমাদের সমাজ কাঠামোয় তথা সমাজ জীবনে পরিবর্তন সাধন করে থাকে।

বাংলাদেশের সমাজের উপর নগরায়ণের ইতিবাচক প্রভাব: নগরায়ণ ও শিল্পায়নের সাধারণ প্রভাব নগরায়ন ও শিল্পায়নের বেশ কিছু সাধারণ প্রভাব রয়েছে। নিম্নে সেগুলোর সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো;

১. কর্মসংস্থান তৈরি: বাংলাদেশের নগরায়ন ও শিল্পায়নের ফলে নতুন নতুন কর্মসংস্থান তৈরি হচ্ছে। এতে করে মানুষের জীবিকার পথ প্রশস্ত হচ্ছে। অধিক জনসংখ্যা দেশ হিসেবে বাংলাদেশের পরিকল্পিত নগরায়নের ইতিবাচক প্রভাব রয়েছে।

২. সমাজ কাঠামো পরিবর্তন: নগরায়নের ফলে গ্রাম ছেড়ে মানুষ শহরের দিকে স্থানান্তর হচ্ছে। নগরায়ণ ও শিল্পায়নের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব হলো সমাজ কাঠামো পরিবর্তন। কারণ নগরের মানুষ নানা বিষয়ে শিক্ষা গ্রহণ ও নানামুখী পেশা অবলম্বনে ফলে সমাজের নানা শ্রেণী উদ্ভব ঘটে। যার ফলে সমাজে আসে সামাজিক স্তর বিন্যাস তথা শ্রেণি কাঠামোর পরিবর্তন।

আরো পড়ুনঃ সমকালীন বাংলাদেশে বিবাহ ও পরিবারের পরিবর্তনশীল রূপ আলোচনা কর।

৩. সামাজিক গতিশীলতা: সামাজিক গতিশীলতা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ হলো নগরায়ণ ও শিল্পায়নের প্রভাব। কেননা নগরের নানা ধরনের পেশা সুযোগ থাকায় নগরবাসীদের মধ্যে দ্রুত গতিতে অর্থ সামাজিক তথা মর্যাদাগত পরিবর্তন লক্ষ করা যায়।

৪. দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন: নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে মানুষের জীবন সম্পর্কে দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হয়। কেননা, নগরবাসীরা তুলনামূলকভাবে বেশি বাস্তববাদী গণতান্ত্রিক চেতনা এবং ব্যক্তিস্বতন্ত্র বোধের অধিকারী। দেখা যায় যে নগরবাসীর তুলনামূলকভাবে বেশি রাজনৈতিক চেতনার অধিকারী। আবার ধর্ম ও নিরপেক্ষতাও নগরবাসীদের মধ্যে বেশি লক্ষ করা যায়।

৫। আধুনিক প্রযুক্তির বিকাশ: নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার ও বিকাশ ঘটে। উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, বহুমুখী সংস্কৃতি, পারস্পরিক সম্পর্ক, দৈনন্দিন জীবন-যাপন প্রভৃতি ক্ষেত্রে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার ও বিকাশে শিল্পায়ন ও নগরায়ণের গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রয়েছে।

৬. আন্তর্জাতিক যোগাযোগ: নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে বর্হিবিশ্বের সাথে অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক, ও সাংস্কৃতিক যোগাযোগ অনেক বৃদ্ধি পায়। শিল্পায়ন এবং নগরায়ণ বিশ্বায়নকে ত্বরান্বিত করে। বিশ্বায়নের ফলে নানা ক্ষেত্রে আন্তঃরাষ্ট্রীয় যোগাযোগে নতুন গতি সঞ্চারিত হয়েছে।

নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে সামাজিক সমস্যাঃ নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে নানা ধরনের সামাজিক সমস্যা দেখা দেয়। নিম্নে এ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো;

আরো পড়ুনঃ সামাজিকীকরণ বলতে কি বুঝ? সামাজিকীকরণে পরিবার ও ধর্মের ভূমিকা আলোচনা কর। নারীর ক্ষমতায়ন বা নারী উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ আলোচনা কর।

১. আবাসিক সমস্যাঃ নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে বাংলাদেশের নগর সমাজে যতগুলো সমস্যা রয়েছে তার মধ্যে আবাসিক সমস্যার অন্যতম। নগরের যারা বসবাস করে তাদের অধিকাংশের নিজস্ব বাড়ি নেই। এদের সবাইকে ভাড়া বাড়িতে থাকতে হয়। নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের কাছে সমস্যাটি চরম সমস্যা হিসেবে বিবেচিত। আবার নগরের ভাসমান জনগোষ্ঠী রাস্তাঘাটে রাত কাটায়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পরবর্তী সময়ে শহরগুলোতে জনসংখ্যা নানা কারণে আরও বৃদ্ধি পায়। যার ফলে, আবাসিক সমস্যা আরও প্রকট আকার ধারণ করে। সরকারি এবং বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন  ধরনের হাউজিং সোসাইটির মাধ্যমে আবাসিক সমস্যার সমাধানের যে প্রয়াস নেওয়া হয়েছে তা একদিকে যেমন প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল অন্যদিকে এগুলো নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তের অনেকেরই আর্থিক সামর্থ্যর বাহিরে।

২. বেকারত্বঃ নগরায়ণ ও শিল্পায়নের একটি বড় সমস্যা হলো বেকারত্ব। যদিও শিল্পায়িত নগর মূলত বেকার সমস্যার সমাধানে এক বিরাট ভূমিকা পালন করার কথা, তথাপি অনুন্নত বিশ্বের অনেক দেশের কত আমাদের দেশের অবস্থা বিপরীত হয়েছে। আমাদের দেশে শিল্পায়ন ছাড়াই অনেক ক্ষেত্রে নগরের বিকাশ ঘটেছে। গ্রাম ছেড়ে শহরে জনসংখ্যা প্রতিদিনই বেড়ে চলেছে। এসব জনসংখ্যার প্রায় সব নগরে কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে ছুটেছে। অথচ আমাদের অল্প শিল্পায়িত ও অশিল্পায়িত নগর গুলো ক্রমবর্ধমান নগরবাসীর কর্মসংস্থানে চরমভাবে ব্যর্থ হচ্ছে।

৩. অপরাধঃ নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে বাংলাদেশর নগর গুলোতে বয়স্ক ও কিশোর অপরাধ মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। নগরের পকেটমার থেকে শুরু করে চুরি, ডাকাতি , ছিনতাই ,রাহাজানি, ধর্ষণ ,খুন প্রভৃতি রকমের অপরাধের খবর পত্র-পত্রিকাগুলো খুললেই পাওয়া যায়।

৪. মাদকাসক্তিঃ পৃথিবীর সব সমাজেই মাদকাসক্তি এক ধরনের সামাজিক সমস্যা যা নানা ধরনের অপরাধের জন্য দায়ী। মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার অবশ্যই দ্বন্দ্বনীয় অপরাধ। বর্তমানে বাংলাদেশের নগর গুলোতে মাদকাসক্ত মারাত্মক রূপ দেখা যাচ্ছে। মাদকাসক্ত ব্যক্তিদের অধিকাংশই বয়সে তরুণ এবং এর কেউ হতাশা বা কেউ কৌতূহলবসত এসব নানা ধরনের মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে। মাদকাসক্তব্য ব্যক্তি নিজে অস্তিত্ব বিপন্ন করেছে। বিপন্ন করেছে তার পরিবারকে। সর্বোপরি সে নানাবিধ অপরাধ সংঘঠনের মাধ্যমে সৃষ্টি করেছে এক বড় ধরনের সামাজিক সমস্যা।

আরো পড়ুনঃ নারীর ক্ষমতায়ন বা নারী উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ আলোচনা কর।

৫.সন্ত্রাস ও সংঘাতজনিত সমস্যাঃ নগর জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সন্ত্রাস ও সংঘাত নৃত্য নৈমিত্তিক ঘটনা। প্রতিদিন পত্র-পত্র খুললেই সন্ত্রাস ও সংঘাতের খবর পাওয়া যায়। আর এই গুলোর অধিকাংশই নগরের। বিশেষ করে শিল্পকারখানায়,যানবাহনে, ঘনবসতিপূর্ণ বস্তি এলাকায় এবং জনাকীর্ণ বা ব্যস্ত রাস্তাঘাটে নানা ধরনের সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটে থাকে।

৬. বস্তির সৃষ্টিঃ অতিরিক্ত জনসংখ্যার ফলে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে ব্যাপক হারে বস্তি এলাকা বৃদ্ধি পাচ্ছে। কারণ অতিরিক্ত জনসংখ্যার জন্য যে পরিমাণ আবাসস্থল প্রয়োজন সে পরিমাণ আবাসস্থল উন্নয়নশীল দেশগুলোতে নেই। এমতাবস্থায় দেশের নিম্ন আয়েরের লোকেরা বস্তি এলাকা বৃদ্ধি করে থাকে।

৭. সামাজিক বৈষম্য বৃদ্ধিঃ উন্নয়নশীল দেশে অতি নগরায়নের ফলে সামাজিক বৈষম্য ও অসমতা বৃদ্ধি পায়। কেননা গ্রাম থেকে আগত অশিক্ষিত, দারিদ্র জনগোষ্ঠীর গ্রামকে শোষণ করে উৎপাদন উপায়ে মালিকেরা ক্রমশ ধনী হচ্ছে এবং বিলাসবহুল জীবন-যাপন করছে। পক্ষান্তরে শ্রমিক শ্রেণী নামমাত্র শ্রমের বিনিময় কাজ করছে এবং মানবেতর জীবন-যাপন করছে।

৮. পরিবহন ব্যবস্থার অপর্যাপ্ততাঃ পরিকল্পনাহীনভাবে নগরায়নের ফলে উন্নয়নশীল বিশ্বের নগর গুলোতে পরিবহনের ক্ষেত্রে দেখা যায় অনিশ্চয়তা। কারণ প্রয়োজন এর তুলনায় যানবাহন কম থাকায় পরিবহন জনিত সমস্যা দেখা দেয়। সড়ক দুর্ঘটনার নিত্য দিনের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। বহু লোকের জীবন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে এবং অনেকে পঙ্গুত্ববরণ করছে।

উপসংহার: শিল্পায়ন ও নগরায়ণ বাংলাদেশের সামাজিক জীবনে গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব বিস্তার করছে। আমাদের অর্থনীতি, সমাজ, সংস্কৃতিসহ দৈনন্দিন জীবনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে এর প্রভাব অনস্বীকার্য। এ প্রভাব ইতিবাচক হতে পারে, আবার নেতিবাচকও হতে পারে। তবে পরিকল্পিত শিল্পায়ন ও নগরায়ণ নেতিবাচক প্রভাব প্রশমিত করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ফেসবুক পেইজ

কোর্স টপিক