fbpx

Discuss the Conflict Between Science and Religion of the Victorian Period. (বাংলায়)

Quesstion: Survey the prominent literary trends of the Victorian age. / Discuss the conflict between Science and Religion of the Victorian Period.

ভিক্টোরিয়ান যুগে (19 শতক) বিজ্ঞান ও ধর্মের মধ্যে দ্বন্দ্ব অত্যন্ত জটিল ছিল। এই দ্বন্দ্ব সেই সময়ের সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং বুদ্ধিবৃত্তিক পরিবর্তনগুলোকে প্রতিফলিত করে। বেশ কয়েকটি বিষয় এই কনফ্লিক্টে অবদান রেখেছে।

বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারের উত্থান: ভিক্টোরিয়ান যুগ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছিল। এতে বিবর্তন তত্ত্ব, ভূতত্ত্বের আবিষ্কার এবং ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিজমের মতো তত্ত্বের বিকাশ অন্তর্ভুক্ত।  এই বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারগুলি বাইবেলের জ্ঞান এবং ঐতিহ্যগত আধ্যাত্মিক শিক্ষার মধ্যে নিহিত ধর্মীয় বিশ্বাসকে চ্যালেঞ্জ করেছিল।

বিবর্তনীয় তত্ত্ব: 1859 সালে চার্লস ডারউইনের “অন দ্য অরিজিন অফ স্পিসিস” প্রকাশনাটি সৃষ্টির বিষয়ে ধর্মীয় বিশ্বাসের প্রতি সরাসরি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়। সাধারণ ভাবে ডারউইনের বিবর্তন তত্ত্ব ধর্মীয় গ্রন্থে বর্ণিত ঐশ্বরিক সৃষ্টির ধারণার বিরোধী। এটি ধর্মীয় মৌলবাদী এবং বৈজ্ঞানিক ধারণার অনুসারীদের কে সংঘর্ষের দিকে নিয়ে যায়।

“আমি মানতে পারি না যে সর্বশক্তিমান ঈশ্বর শুঁয়োপোকার জীবন্ত দেহের মধ্যে তাদের খাওয়ানোর উদ্দেশ্যে ইকনিউমোনিডিকে ডিজাইন করে তৈরি করেছেন।” – চার্লস ডারউইন.

আরো পড়ুনঃ Examine the Influence of the French Revolution on Romantic Poetry. (বাংলায়)

ভূতাত্ত্বিক আবিষ্কার: ভিক্টোরিয়ান যুগের ভূতাত্ত্বিকরা গুরুত্বপূর্ণ কিছু আবিষ্কার করেছিলেন যা পৃথিবীর ইতিহাসের বাইবেলকে চ্যালেঞ্জ করেছিল। ভূতাত্ত্বিকরা প্রমাণ করেন যে, যেমন জীবাশ্ম এবং ভূতাত্ত্বিক স্তরগুলির আবিষ্কার বোঝা যায় যে ধর্ম গ্রন্থে যা বলা আছে পৃথিবী তার থেকে অনেক বেশি পুরনো। এই আবিষ্কার গুলো বাইবেলের ধারণার বিরোধিতা করেছিল এবং বৈজ্ঞানিক ও ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি করেছিল। বিখ্যাত ভূতত্ত্ববিদ, চার্লস লেয়েল বলেছেন,

“বর্তমান অতীতের চাবিকাঠি।” – চার্লস লায়েল

বাইবেলের সমালোচনা: ভিক্টোরিয়ান যুগে, পণ্ডিতরা বাইবেল বিশ্লেষণ করার জন্য সমালোচনামূলক পদ্ধতি প্রয়োগ করতে শুরু করেছিলেন এবং তারা এর ঐতিহাসিক যথার্থতা এবং লেখনী নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। বাইবেলের সমালোচনা নামে পরিচিত এই পদ্ধতিটি বাইবেলের দৃষ্টিভঙ্গিকে ঈশ্বরের শব্দ হিসেবে টিকিয়ে রাখতে চ্যালেঞ্জ করেছিল। এই সমালোচনা ধর্মীয় মানুষদের কর্তৃত্ব এবং বিশ্বাসের জন্য হুমকি বলে মনে করা হয়েছিল।

কনফ্লিক্ট থিসিস: জন উইলিয়াম ড্রেপার এবং অ্যান্ড্রু ডিকসন হোয়াইট এর জনপ্রিয় কনফ্লিক্ট থিসিস অনুযায়ী  বিজ্ঞান এবং ধর্মের মধ্যে একটি অন্তর্নিহিত এবং চিরস্থায়ী দ্বন্দ্ব ছিল। এই থিসিস অনুসারে, বৈজ্ঞানিক অগ্রগতি এবং ধর্মীয় বিশ্বাসগুলি এক সাথে যায়না। যদিও কনফ্লিক্ট থিসিসটি আধুনিক স্কলারশিপে সমালোচিত হয়েছে, তবে এটি ভিক্টোরিয়ান যুগে বিজ্ঞান-ধর্ম সংঘর্ষের ধারণাকে প্রভাবিত করেছিল।

নৈতিক উদ্বেগ: বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারগুলো অনেক সময় নৈতিক প্রশ্ন উত্থাপন করেছে যা কখনও কখনও ধর্মীয় নৈতিক মূল্যবোধের সাথে সাংঘর্ষিক। উদাহরণ স্বরূপ, সন্তান জন্মদানে অ্যানেস্থেশিয়ার ব্যবহার, এবং নৈতিক আচরণের উপর বিবর্তনীয় তত্ত্বের প্রভাবের মত বিষয় নিয়ে বিতর্ক বিজ্ঞান ও ধর্মের সামঞ্জস্য কে আরো সমালোচিত করে তোলে।

বৈজ্ঞানিক ধারণার ধর্মীয় বিরোধিতা: ভিক্টোরিয়ান যুগে অনেক ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব এবং প্রতিষ্ঠান বৈজ্ঞানিক অগ্রগতি এবং আবিষ্কারের বিরোধিতা করেছিল যা তাদের বিশ্বাসকে চ্যালেঞ্জ এর মুখে ফেলে দেয়। তারা এই বৈজ্ঞানিক ধারণাগুলিকে ধর্মীয় কর্তৃত্ব এবং নৈতিকতার জন্য ক্ষতিকর হিসাবে বিবেচনা করেছিল। যেমন ডারউইনের বিবর্তন তত্ত্বের বিরোধিতা, ভূতত্ত্বের আবিষ্কার এর সমালোচনা এবং ধর্মীয় শিক্ষার বিরোধিতাকারী চিকিৎসা পদ্ধতির নিন্দা উল্লেখযোগ্য। 

আরো পড়ুনঃ Consider Tennyson as a Representative Poet of the Victorian Age. (বাংলায়)

পুনর্মিলনের প্রচেষ্টা: দ্বন্দ্ব সত্ত্বেও, ভিক্টোরিয়ান যুগে বিজ্ঞান এবং ধর্মের মধ্যে সমন্বয়ের প্রচেষ্টা অব্যাহত ছিল। কেউ কেউ ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারগুলোকে সামঞ্জস্য করতে চেস্টা করতেন, সেই সাথে তারা বিকল্প ব্যাখ্যার দিতেন যা ধর্মীয় গ্রন্থগুলোর অর্থ বুঝতে সহায়তা করে। 

ভিক্টোরিয়ান যুগে যখন বিজ্ঞান এবং ধর্মের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল, তখন সকলেই বিপরীত অবস্থানে ছিলেন না। কেউ কেউ ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারগুলোকে সামঞ্জস্য করতে চেস্টা করতেন, সেই সাথে তারা বিকল্প ব্যাখ্যার দিতেন যা ধর্মীয় গ্রন্থগুলোর অর্থ বুঝতে সহায়তা করে। 

Shihabur Rahman
Shihabur Rahman
Hey, This is Shihabur Rahaman, B.A (Hons) & M.A in English from National University.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ফেসবুক পেইজ

কোর্স টপিক