fbpx

Do You Think Keats Wants to Escape From Reality? (বাংলায়)

Question: Do you think Keats wants to escape from reality? Justify your answer from your study of Keats.

কিটস একজন বিখ্যাত রোমান্টিক কবি, তার মধ্যে স্কেপিস্ট বা পলায়ন করার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। একজন স্কেপিস্ট হচ্ছে এমন এক ব্যক্তি যে জীবনের দুঃখ ও কঠোর বাস্তবতা থেকে পালিয়ে একটি আদর্শ স্থানে আশ্রয় নিয়ে চায় যেখানে কোনো দুঃখ দুর্দশা থাকবে না। আদর্শ পৃথিবী হচ্ছে একটি কাল্পনিক স্থান যেখানে রয়েছে শুধু আনন্দ। যাইহোক, কিটস বাস্তব পৃথিবীকে মেনে নেয় এবং বাস্তবতায় ফিরে আসে।

“Ode to a Nightingale”: “Ode to a Nightingale” কবিতাটি শুরু হয় কবির মন ও দেহে নাইটিংগেল পাখির গানের প্রভাব বর্ণনার মাধ্যমে। কবির গাছে নাইটিংগেলর গান হচ্ছে চিরস্থায়ি সুখের প্রতীক। তাই কবি প্রথিবীর এই দুঃখ দূর্দশা ও রোগ শোক থেকে পালিয়ে কাল্পনিক সেই বাগানে আশ্রয় নিয়ে নাইটিংগেলর গান শুনতে চায়। সেই কাল্পনিক বনে কবি সুখ খুঁজে পায়। কবে বলেন,

আরো পড়ুনঃ How Did Darcy Declare His Love for Elizabeth in Pride and Prejudice? (বাংলায়)

“That I might drink and leave the world unseen,

And with thee fade away into the forest dim.”

কিন্ত “Forlorn” শব্দের মাধ্যমে কবি বাস্তব পৃথিবীতে ফিরে আসে। কারণ কবি বিশ্বাস করে যে কাল্পনিক জগত শুধু অল্প সময়ের জন্য আমাদের আশ্রয় দিতে পারে। কবি বলেন,

“Forlorn! the very word is like a bell

To toll me back from thee to my sole self.”

“Ode on a Grecian Urn”: “Ode on a Grecian Urn” কবিতায় কবি কারুকর্মের চিরস্থায়ী সৌন্দর্য বর্ণনা করেছেন এবং গ্রেসিয়ান পাত্রে আঁকা চিত্রকে অমরত্ব দান করেছেন। গ্রেসিয়ান পাত্রে আঁকা আছে তরুণ প্রেমকযুগল, গাছ, ও বাঁশির ছবি। বাদক সর্বদাই গাছের নিচে বাঁশি বাজাচ্ছে। প্রেমিকরা তাদের প্রেমিকাদের ধরে চুমু দেয়ার চেষ্টা করছে, আর লজ্জাবতী প্রেমিকারা পালাচ্ছে। এই সুন্দর জগতে তরুণ প্রেমিক-প্রেমিকারা কখনো বৃদ্ধ হবে না বা তাদের ভালবাসা নষ্ট হবে না। কঠোর বাস্তব জগত থেকে পালিয়ে কিটস গ্রেসিয়ান পাত্রের সুন্দর জগতে আশ্রয় নেয়। কবি বলে, 

“She cannot fade, though thou hast not thy bliss,

Forever wilt thou love and she be fair!”

“Ode on Melancholy”: “Ode on Melancholy” কবিতায় আমরা সুন্দরের ক্ষণস্থায়ীতা দেখতে পাই। সৌন্দর্য ও আনন্দ হচ্ছে বিষাদের প্রকৃত উৎস। দুঃখ ও কুৎসিত জিনিসের মধ্যে আসলে বিষাদ বা মেলানকোলি নেই, বিষাদ রয়েছে সুন্দর ও আনন্দদায়ক জিনিসের মধ্যে। তাই, চরম বিষাদ লুকিয়ে থাকে বৃষ্টি ধারায়, গোলাপের সুগন্ধে, ও প্রিয়তমার কাজল-কালো চোখে। যেহেতু সৌন্দর্য ক্ষণস্থায়ি, তাই তা মানুষের মনে বিষাদের জন্ম দেয় ও দুঃখী করে। কবি বিষাদকে একটি দেবীর সাথেও তুলনা করেছে যে সৌন্দর্যের দেবীর সাথে একসাথে থাকে। কবি বলেন,

আরো পড়ুনঃ Hardy’s Pessimistic View is Evident in Tess of the D’Urbervilles (বাংলায়)

“সে সৌন্দর্যের সাথে বাস করে, যা অবশ্যই ক্ষণস্থায়ি”

একইভাবে, বিষাদ ও আনন্দের দেবীরা একই টেম্পলে থাকে। আনন্দের দেবতা সবসময়ই তার ভক্তদের ফেলে দূরে চলে যায়। কবি বলে,

“And Joy whose hand is ever at his lips Bidding adieu.”

পরিশেষে, কিটস প্রকৃত স্কেপিস্ট বা পলাতক নয়। যদিও সে কঠোর বাস্তব জগত ছেড়ে কাল্পনিক জগতে পলায়ন করে, কিন্তু তা অল্প সময়ের জন্য, অবশেষে সে বাস্তবে ফিরে আসে।

Shihabur Rahman
Shihabur Rahman
Hey, This is Shihabur Rahaman, B.A (Hons) & M.A in English from National University.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ফেসবুক পেইজ

কোর্স টপিক