fbpx

ইসলামী সংস্কৃতি কী? ইসলাম ধর্মের পাঁচটি স্তম্ভ লেখ

প্রশ্নঃ ইসলামী সংস্কৃতি কী? ইসলাম ধর্মের পাঁচটি স্তম্ভ লেখ।

ইসলামী সংস্কৃতি: দুনিয়া এ আখিরাতের সমন্বয়ে ইসলামী সংস্কৃতি একটি আদর্শিক সংস্কৃতি। ইসলাম মানবজাতির সুষ্ঠু জীবনযাপনের যে নিয়মনীতি বা বিধিব্যবস্থা প্রণয়ন করে তার ব্যবহারিক দিকগুলোকে ইসলামী সংস্কৃতি বলা হয়। অন্যভাবে বলা যায়, ইসলামী সংস্কৃতি বলতে সেই ভাবধারাকে নির্দেশ করে যা মহানবী সা: কর্তৃক প্রবর্তিত ইসলামী সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- ইসলামী আচার-আচরণ, জীবনদর্শন, শিক্ষা, সাহিত্য, জ্ঞান-বিজ্ঞান, শিল্প, ব্যবসায়-বাণিজ্য সর্বোপরি মানবজীবনের সামগ্রিক ব্যবস্থায় ইসলামী পদ্ধতি অনুসারে জীবন পরিচালনা করা। মুসলমানদের অনুশীলিত ধর্মাচার, স্থানীয়, সামাজিক, রাষ্ট্রীয় ও আন্তর্জাতিক নিয়ম-পদ্ধতি, জীবনপ্রক্রিয়া ও ঐতিহ্যের যা কিছু ইসলামের নিয়মাবলি অনুমোদন ও প্রতিফলিত হয় সেগুলোকেই ইসলামী সংস্কৃতি বলে।

প্রখ্যাত মুসলিম দার্শনিক আল্লামা আবুল হাশিম তার ‘ক্রিড অব ইসলাম’ গ্রন্থে বলেন, ‘মানুষের শারীরিক ও মানসিক বৃত্তিগুলোর ইসলামী নীতি, আদর্শ ও শিক্ষাসম্মত উৎকর্ষসাধন পদ্ধতি এবং ব্যবহারিক জীবনে তার বাস্তব রূপ হলো ইসলামী সংস্কৃতি।’

আরো পড়ুনঃ প্রবেশন এবং প্যারোল কি? এদের মধ্যে পার্থক্য নিরূপণ কর।

ইসলাম ধর্মের পাঁচটি স্তম্ভঃ ইসলাম ধর্মের কিছু মূল বিষয় রয়েছে যেগুলো এর ভিত্তি বা স্তম্ভ নামে পরিচিত। একজন মুসলমানের জীবনে এগুলোর প্রভাব ও গুরুত্ব অপরিসীম। ইসলাম ধর্মের স্তম্ভ বা ভিত্তি মূলত পাঁচটি। যথা –

ইউটিউবে ভিডিও লেকচার দেখুনঃ


১. কালেমা: ইসলামের পঞ্চস্তম্ভের প্রথম ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ হচ্ছে কালেমা। একজন মুসলমান হওয়ার পূর্ব শর্ত হচ্ছে কালেমা ‘আল্লাহ ছাড়া কোনো উপাস্য নাই এবং মুহাম্মাদ (সা.) তার রাসূল’ মুখে বলা ও অন্তরে বিশ্বাস করা। ইসলামের চার কালেমায় বিশ্বাস স্থাপন করে ঈমান আনা কালেমার মূল উদ্দেশ্যে। মহান আল্লাহ তায়ালা পৃথিবীতে যতো নবী রাসূলগণ প্রেরণ করেছেন, তাদের সকলের দাওয়াতের মূল বিষয় ছিলো তাওহীদ। আর এই তাওহীদের ওপর বিশ্বাস প্রতিস্থাপনের নামই হলো ঈমান।

২. নামাজ: নামাজ বা সালাত হলো ইসলাম ধর্মের অন্যতম ইবাদত। নামাজ ইসলামের পঞ্চস্তম্ভের একটি। কালেমার পরেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো নামাজ। পবিত্র কোরআন মাজীদে মহান আল্লাহ তায়ালা বিভিন্ন জায়গায় সরাসরি ৮২ বার সালাত শব্দ উল্লেখ করে নামাজের গুরুত্ব বর্ণনা করেছেন। মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআন মাজীদে বলেছেন, ‘আমিই আল্লাহ আমি ব্যতীত কোনো ইলাহ নেই। অতএব আমার ইবাদত কর এবং আমার স্মরণার্থে নামাজ কায়েম কর।’’ (সূরা ত্বোয়া-হা: ১৫)

আরো পড়ুনঃ পল্লী উন্নয়ন বলতে কি বুঝ?

৩. রোজা: রোজা ফারসি শব্দ এবং সাউম‌ বা সিয়াম আরবি শব্দ। ইসলাম ধর্মের পাঁচটি মূল স্তম্ভের তৃতীয় স্তম্ভ হচ্ছে রোজা। সূর্যোদ্বয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সকল প্রকার খাবার ও পানীয় এবং যাবতীয় ভোগ-বিলাস থেকেও বিরত থাকার নাম রোজা। ইসলামের বিধান অনুযায়ী, প্রতিটি সুস্থ মুসলমানের জন্য রমজান মাসের প্রতি দিন রোজা রাখা ফরজ। ফরজ অর্থ অবশ্যই পালনীয়। রোজা কেবল উম্মাতে মোহাম্মাদীর ওপরই ফরজ না, এর আগের উম্মতদের ওপরও তা ফরজ ছিলো।

৪. হজ: হজ আরবি শব্দ। হজ শব্দের আভিধানিক অর্থ ‘ইচ্ছা’ বা ‘সংকল্প’ করা। হজ ইসলাম ধর্মের পঞ্চস্তম্ভের চতুর্থ স্তম্ভ। ইসলাম ধর্মাবলম্বী অর্থাৎ মুসলমানদের জন্য হজ একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। শারীরিক ও আর্থিক দিক থেকে সক্ষম হলেই প্রত্যেক মুসলমান নর-নারীর জন্য জীবনে একবার হজ সম্পাদন করা ফরজ বা আবশ্যিক। আরবি জিলহজ মাসের ৮ থেকে ১২ তারিখ হজর জন্য নির্ধারিত সময়। হজ পালনের জন্য বর্তমান সৌদী আরবের মক্কা নগরীর কাবাঘর, সন্নিহিত মিনা, আরাফাত প্রভৃতি স্থানে গমন এবং অবস্থান আবশ্যক। এটি মুসলমানদের পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বাৎসরিক তীর্থযাত্রা।

আরো পড়ুনঃ প্রজননশীলতা ও মরণশীলতা কী?

google news

৫. জাকাত: জাকাত ‎আরবি শব্দ। যার অর্থ হচ্ছে ‘পরিশুদ্ধ করা’। জাকাত ইসলাম ধর্মের পঞ্চস্তম্ভের গুরুত্বপূর্ণ একটি স্তম্ভ। ইসলাম কেবল একটি ধর্ম নয়, এটি একটি জীবনব্যবস্থা। এতে রয়েছে সমাজনীতি,পররাষ্ট্রনীতি, যুদ্ধনীতি, অর্থনীতি। জাকাত হলো ইসলামী অর্থনীতির একটি বুনিয়াদ। প্রত্যেক স্বাধীন, পূর্ণবয়স্ক মুসলমান নর-নারীকে প্রতি বছর স্বীয় আয় ও সম্পত্তির একটি নির্দিষ্ট অংশ জাকাত দিতে হয়। ইসলামের পঞ্চস্তম্ভের মধ্যে হজ এবং জাকাতই শুধুমাত্র শর্তসাপেক্ষ যে, তা সম্পদশালীদের জন্য ফরজ বা আবশ্যিক হয়। পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআনে ‘জাকাত’ শব্দের উল্লেখ এসেছে ৩২ বার। পবিত্র কোরআনে নামাজের পরেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পূর্ন বিষয় হিসাবে উল্লেখ্য এই জাকাত। জাকাত শব্দের অর্থ পরিচ্ছন্নতা। নিজের আয় থেকে একটি নির্দিষ্ট অংশ গরীব দু:খী মানুষকে দান করে নিজের আত্মার পরিশুদ্ধিই হলো জাকাত। শরীয়তের ভাষ্যমতে, বাৎসরিক আয়ের ২.৫% অংশ মহান আল্লাহের পথে দান করার নামই জাকাত। এতে সম্পদ হালাল এবং আত্মার পরিশুদ্ধি হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ফেসবুক পেইজ

কোর্স টপিক